http://igeneration.com.bd/wp-content/uploads/2021/05/Palestinian-child-raped-in-ruins-video-goes-viral.jpg

ধ্বংসস্তূপেই র‍্যাপ গাইল ফিলিস্তিনি শিশু, ভিডিও ভাইরাল

সারা বিশ্ব

ইসরায়েলি বোমা হামলায় ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে গাজা। প্রতিদিন হতাহতের সংখ্যাও বাড়ছে। নিহতদের বড় অংশই শিশু ও নারী। ঈদের পোশাক পরা শিশুরাও ইসরায়েলি বোমায় ছিন্নভিন্ন যাচ্ছে। অবরুদ্ধ উপত্যকাটিতে বেঁচে থাকার অভিজ্ঞতা নিয়ে র‌্যাপ গাইতে দেখা গেছে একটি ফিলিস্তিনি শিশুকে।

ধ্বংসস্তূপের মধ্যেই গাওয়া তার গানটি সামাজিকমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। তুরস্কভিত্তিক সংবাদমাধ্যম টিআরটি ওয়ার্ল্ডে শেয়ার হওয়া ভিডিওতে ৩১ হাজারের মতো লাইক পড়েছে। এছাড়াও সামাজিকমাধ্যমটির বিভিন্ন পেজ ও ইউটিউবে ভিডিওটি ব্যাপক ছড়িয়ে পড়েছে।

শিশুটির গানের তারিফ করে ফিলিস্তিনের প্রতি ভালোবাসা দেখাতে গেছে বহু নেটিজেনকে। অনেকেই আক্ষেপ করে বলছেন, এই শিশু আর ধ্বংস হওয়া বাড়িঘরগুলো যদি আমাদের হতো! তখন কী হতো, আমরা কী কল্পনা করতে পারি। এদিকে উপত্যকাটিতে ইসরায়েলি বিমান হামলায় আরও ১০টি শিশুসহ ৪২ ফিলিস্তিনি নিহত ও বহু লোক আহত হয়েছেন। রোববার (১৬ মে) ইসরায়েলি বাহিনী ফিলিস্তিনিদের বাড়িঘরে হামলা চালালে এই হতাহতের ঘটনা ঘটে।

ফিলিস্তিনি স্বাস্থ্য কর্মকর্তাদের বরাতে বার্তা সংস্থা রয়টার্স এমন খবর দিয়েছে। এই হত্যাকাণ্ডকে ‘পূর্বপরিকল্পিত’ বলে অভিযোগ করেছে হামাস। সাতদিন ধরে চলা এই লড়াই কখন শেষ হবে, তার কোনো আভাস মিলছে না। ফিলিস্তিনি প্রতিরোধ আন্দোলন হামাসও ইসরায়েলে রকেট হামলা অব্যাহত রেখেছে।

গত কয়েক বছরের মধ্যে ফিলিস্তিনে ইসরায়েলের সবচেয়ে রক্তক্ষয়ী হামলার সাতদিন পর জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ এ নিয়ে আলোচনা হয়েছে। ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু বলেন, গাজায় পূর্ণশক্তিতে হামলা অব্যাহত থাকবে। এর আগে গাজায় আল-জাজিরাসহ আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের একটি ১২তলা কার্যালয় মাটিতে মিশিয়ে দিয়েছে ইসরায়েলি বাহিনী। গাজায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৯২ জনে, যার মধ্যে ৫৮টি শিশু রয়েছে। আহত হয়েছেন এক হাজার ২০০ জনের বেশি।

ইসরায়েলে এখন পর্যন্ত ১০ জন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। রোববার ইসরায়েলি হামলায় বিধ্বস্ত বাড়ি থেকে ধ্বংসস্তূপ সরিয়ে নিতে দেখা গেছে ফিলিস্তিনিদের। তারা নিহতদের মরদেহ উদ্ধার করছেন। উদ্ধারকাজে সহায়তাকারী মাহমুদ হামিদ বলেন, এটি এক বিভৎস মুহূর্ত, যা কেউ মুখে বর্ণনা করতে পারবে না। ইসরায়েলি সামরিক বাহিনী বলছে, এই হত্যাকাণ্ড অনিচ্ছাকৃত।

২০১৪ সালের পর থেকে গত কয়েক বছরের মধ্যে এটিই ইসরায়েল ও গাজার মধ্যে চলা সবচেয়ে ভয়াবহ লড়াই। এ সহিংসতা নিয়ে রোববার জাতিসংঘের নিরপত্তা পরিষদে একটি বৈঠক হয়েছে। এ দিন ইসরায়েলি পুলিশ ছুরিসহ দুই ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে। তারা সীমান্ত পার হয়ে জর্ডান থেকে ইসরায়েলে প্রবেশ করেছিলেন বলে জানা গেছে।

ইসরায়েলি সামরিক বাহিনী জানিয়েছে, রাতে হামাস ইসরায়েলের দিকে ১২০টি রকেট ছুড়েছে, এর অধিকাংশই আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা আয়রন ডোম ধ্বংস করে দিয়েছে। আর প্রায় ডজনখানেক রকেট লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়ে গাজার ভেতরেই পড়েছে। রকেট হামলার সাইরেন শুনে ইসরায়েলের তেলআবিব ও বীরশেবা শহরের বাসিন্দারা তাড়াহুড়া করে ভূগর্ভস্থ আশ্রয় কেন্দ্রগুলোতে চলে যান। দৌড়ে এসব আশ্রয়স্থলে যাওয়ার সময় প্রায় ১০ জন আহত হয়েছেন বলে দেশটির চিকিৎসা কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

             ফ্রি কুইজে অংশগ্রহণ করে জিতে নিন ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত পুরস্কার

ইসরায়েলি সামরিক বাহিনী জানিয়েছে, রোববার ভোররাতে গাজার দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর খান ইউনুসে হামাসের আঞ্চলিক নেতা ইয়াহিয়া আল সিনওয়ারের বাড়িতে হামলা চালিয়েছে তারা। সিনওয়ার ২০১১ সালে ইসরায়েলের কারাগার থেকে মুক্তি পাওয়ার পর ২০১৭ সাল থেকে গাজা অঞ্চলের হামাসের রাজনৈতিক ও সশস্ত্র শাখার প্রধান হিসেবে দায়িত্বপালন করে আসছেন।

Tagged