http://igeneration.com.bd/wp-content/uploads/2021/05/সারা-দিল্লি-ঘুরেও-মাকে-বাঁচাতে-পারলাম-না-মেয়ের-আর্তনাদ.jpg

সারা দিল্লি ঘুরেও মাকে বাঁচাতে পারলাম না, মেয়ের আর্তনাদ

সারা বিশ্ব

মহামারি করোনায় মৃত্যুপুরীতে পরিণত হয়েছে ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লি। ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়ে শহরটিতে প্রতি চার মিনিটে একজনের মৃত্যু হচ্ছে। সর্বশেষ দেশটিতে একদিনে শনাক্ত হয়েছেন রেকর্ড চার লাখের বেশি। মারা গেছেন সাড়ে ৩ হাজারের বেশি। এ অবস্থায় হাসপাতালগুলোতে চলছে অক্সিজেনের তীব্র সংকট। সারা দিল্লি ঘুরেও মাকে বাঁচাতে পারলাম না, মেয়ের আর্তনাদ।

এর দায় রাজ্য সরকারের ওপর চাপাচ্ছেন সাধারণ মানুষ। অক্সিজেনের অভাবে মাকে বাঁচাতে না পেরে এক মেয়ের আর্তনাদ বলে দিচ্ছে কতটা ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে দিল্লির করোনা পরিস্থিতি। দুই দিন চেষ্টা করেও মায়ের জন্য হাসপাতালে একটা শয্যার ব্যবস্থা করতে পারেনি অসহায় মেয়েটি। অসহায় সেই মেয়েটি জানান, রাত থেকে আমরা সারা দিল্লি ঘুরেছি, কোথাও কোনো ব্যবস্থা করতে পারিনি। আমরা সত্যিই অসহায়।

ভারতের রাজধানীর সরকারি কিংবা বেসরকারি কোনো হাসপাতালে নেই শয্যা। অক্সিজেনের জন্য হাহাকার তো আছেই। এর মধ্যেই রাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী সত্যেন্দ্র কুমার জানান, নেই করোনার ভ্যাকসিন। শহরে এখন দেয়ার মতো কোনো ভ্যাকসিন নেই। দিল্লি সরকার বেসরকারি সংস্থা থেকে ভ্যাকসিন কেনার চেষ্টা করছে।

ভারতীয় গণমাধ্যমের তথ্যমতে, দিল্লিতে প্রতি চার মিনিট অন্তর অন্তর একজন করে করোনা রোগীর মৃত্যু হচ্ছে। শহরটিতে ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে এখন পর্যন্ত মারা গেছে ১৫ হাজারের বেশি মানুষ। আর মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১১ লাখের বেশি।

ওয়ার্ল্ডওমিটারের তথ্যানুযায়ী, শনিবার (০১ মে) সকাল পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বে মারা গেছেন ১৪ হাজার ২৬৬ জন এবং নতুন করে ৮ লাখ ৭১ হাজার ৫৯৮ জনের শরীরে এই ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে বিশ্বে মোট করোনায় মৃত্যু হয়েছে ৩১ লাখ ৯৩ হাজার ৬৫৩ জনের এবং আক্রান্ত হয়েছেন ১৫ কোটি ২০ লাখ ২ হাজার ৩৬৫ জন। এ ছাড়া সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১২ কোটি ৯২ লাখ ৭১ হাজার ৪৭ জন।

আক্রান্তে দ্বিতীয় ও মৃত্যুতে তৃতীয় অবস্থানে থাকা ভারতে এখন পর্যন্ত সংক্রমিত হয়েছেন এক কোটি ৯১ লাখ ৫৭ হাজার ৯৪ জন এবং মারা গেছেন ২ লাখ ১১ হাজার ৮৩৫ জন।