http://igeneration.com.bd/wp-content/uploads/2021/04/করোনায়-মৃত-মাকে-বাইকে-বসিয়ে-১৮-কিমি-পাড়ি.jpg

করোনায় মৃত মাকে বাইকে বসিয়ে ১৮ কিমি পাড়ি

সারা বিশ্ব

করোনায় আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন মায়ের মৃত্যু হয় হাসপাতালেই। কিন্তু তার মৃতদেহ গ্রামের শশ্মান পর্যন্ত নিয়ে যেতে কোনোভাবেই গাড়ির ব্যবস্থা করতে পারেননি তার সন্তান। করোনায় মৃত মাকে বাইকে বসিয়ে ১৮ কিমি পাড়ি।

অবশেষে অন্য এক আত্মীয়ের সহায়তায় মায়ের মরদেহ মোটরসাইকেলে বসিয়ে ১৮ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে শশ্মানঘাটে নিয়ে যান ছেলে। প্রতিবেশি ভারতের রাজ্য অন্ধ্রপ্রদেশের ঘটনা এটি। সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া একটি ভিডিওতে দেখা যায়, মৃত মাকে বাইকে বসিয়ে দীর্ঘপথ পাড়ি দেন তার সন্তান নরেন্দ্র। পেছনে ওই মায়ের মরদেহ ধরে রাখেন তার আরেক আত্মীয়।

জানা যায়, স্থানীয় এক চিকিত্সকের পরামর্শে নরেন্দ্র তার মা চেনচুকে শ্রীকাকুলাম জেলার পালাসা শহরের একটি ডায়াগনস্টিক সেন্টারে নিয়ে গিয়েছিলেন। সিটি স্ক্যান পরীক্ষার রিপোর্টের জন্য অপেক্ষা করতে করতে তার মাটিতে লুটিয়ে পড়ে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

ওই মা অসুস্থ ছিলেন এবং কোভিড-১৯ এর লক্ষণ ছিলো তার মধ্যে। তার মৃত্যুর পর সিটি স্ক্যানের রিপোর্টে দেখা যায়, তিনি আসলেই কোভিডে আক্রান্ত ছিলেন।

কিন্তু বিপত্তি বাধে লাশ শ্মশানে নিয়ে যাওয়ার সময়। অ্যাম্বুলেন্স বা অটোরিকশা খুঁজতে খুঁজতে হয়রান হয়ে শেষ পর্যন্ত এক আত্মীয়ের সহায়তায় মৃত মায়ের দেহটি ধরে মোটরসাইকেলে করে ১৮ কিলোমিটার পাড়ি দেন তিনি। পথে একাধিকবার পুলিশ আটকালেও এ ঘটনা দেখে পুলিশ তাদের যেতে দেন। পুলিশ যখন তাদেরকে থামিয়েছিল তখন কেউ একজন ভিডিওটি করেন।

শ্রীকাকুলামের পুলিশ সুপার বি রাজা কুমারী জানান, কোভিড-১৯ রোগীদের জন্য ডেডিকেটেড অ্যাম্বুলেন্স সার্ভিসের জন্য এই পরিবারটি যোগাযোগ করেনি। সূত্র : এনডিটিভি