http://igeneration.com.bd/wp-content/uploads/2021/04/ভারতে-মসজিদে-হিন্দুদের-চিকিৎসার-ব্যবস্থা-করে-দিলো-মুসলমানরা.jpg

ভারতে মসজিদে হিন্দুদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করে দিলো মুসলমানরা

সারা বিশ্ব

একের পর এক হসপিটাল ঘুরে চিকিৎসার ব্যাবস্থা হচ্ছে না করোনা আক্রান্ত মুমূর্ষু রোগীদের। অক্সিজেনের খবর পেয়ে স্বজনেরা তদেরকে নিয়ে আসছেন উত্তর প্রদেশের গুরু দোয়ারায়। শিখদের স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের মাধ্যমে মিলছে কাংখিত অক্সিজেন। যে কোন দূর্যোগে সহায়তা নিয়ে এগিয়ে যাওয়ার সুনাম আছে শিখদের। ভারতে মসজিদে হিন্দুদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করে দিলো মুসলমানরা।

দেশে মহামারীর ভয়াবহতার মধ্যে আবারও দৃশ্যপটে তারা। নিজেদের প্রার্থনার জায়গাতেই চিকিৎসা কেন্দ্র বানিয়ে নিয়েছেন তারা। অক্সিজেন সংকটের কারনে গোটা ভারতে এতটা ভয়াবহ পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। বেশিরভাগ রোগীর অক্সিজেনের প্রয়োজন পড়ছে।  তাই মোবাইল অক্সিজেনের মাধ্যমে রোগীদের সেবা দেওয়ার চেষ্টা করে যাচ্ছেন তারা।

গেল ৩৬ ঘন্টায় ৭ শতাধিক রোগীকে অক্সিজেন দিতে পেরেছেন বলে যানিয়েছেন শিখদের একজন স্বেচ্ছাসেবী। করোনা আক্রান্ত রোগিদের চিকিৎসায় এগিয়ে এসেছেন ভারতের মুসলিমরা ও। আইসোলেশন সেন্টারের জন্য ছেড়ে দিয়েছেন পবিত্র মসজিদকে। গুজরাটের একটি মসজিদের একটি অংশে চালু করা হয়েছে অস্থায়ী হাসপাতাল।

চিকিৎসা চলছে হিন্দু মুসলিম সব ধর্মের মানুষের। একজন স্বেচ্ছাসেবী জানান যে, এই মুহুর্তে ৫০ টি বেড বসানো হয়েছে। প্রয়োজনে আরও ৫০ টি বেডের জন্য সবকিছু প্রস্তুত রাখা হয়েছে। রোগীদের জন্য রয়েছে অক্সিজেনের ব্যবস্থা।” মহামারীর এই পরিস্থিতিতে অনেক মন্দিরও পরিনত হয়েছে চিকিৎসা কেন্দ্রে।

দেওয়া হচ্ছে শত শত রোগীর সেবা। হাসপাতালের একজন ডাক্তার জানান যে, কোন হাসপাতালেই বেড খালি নেই। কেউ ভাগ্যক্রমে বেড পেলেও নেই অক্সিজেন ও ওষুধের সরবরাহ। তাই এখানেই সেবা দিয়ে যাচ্ছি। কয়েক সপ্তাহে ব্যবধানে ভারতের পরিস্থিতি যেভাবে খারাপ হয়েছে, তাকে সুনামির সাথে তুলনা করছেন অনেকে। এই দুর্যোগ থেকে মুক্তি পেতে পার্থনা চলছে দেশটির উপশানালয়গুলোতে।