Earth

পৃথিবীর চেয়ে ২৩ গুণ বড় গ্রহের সন্ধান পেয়েছে নাসা

প্রযুক্তি খবর

শতাব্দীর পর শতাব্দী ধরে বিজ্ঞানীরা কিছু প্রশ্নের উত্তর খুঁজে চলেছেন। তবু ওই সব প্রশ্নের সমাধানে তাঁরা একবিন্দু্‌ও এগোতে পারেননি। এমন একটি প্রশ্ন, পৃথিবীই কি একমাত্র প্রাণের উৎস? তবে মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থার (নাসা) বিজ্ঞানীরা এবার এমন তিনটি গ্রহের সন্ধান পেয়েছেন, যা তাঁদের ওই প্রশ্নের সমাধানে সহায়তা করতে পারে। এই মহাজগতে পৃথিবী ছাড়া আর কোনো গ্রহে প্রাণের স্পন্দন আছে কি না, সেই রহস্যের ওপর আলো ফেলতে পারে ওই তিন গ্রহ।

আমাদের সৌরব্যবস্থার বাইরে তিনটি নতুন গ্রহ ও ছয়টি সুপারনোভা পর্যবেক্ষণ করেছে নাসা। সংস্থাটির গ্রহ অনুসন্ধানী টেস মিশনের প্রথম তিন মাসের মধ্যেই এ গ্রহ ও সুপারনোভার সন্ধান পাওয়া গেছে। গত জুলাই থেকে আকাশে জরিপ শুরু করেছে নাসা।

এমআইটির পরিচালনায় ট্রানসিটিং এক্সোপ্লানেট জরিপ উপগ্রহ একটি সুপার-পৃথিবী পি মেনসাই শনাক্ত করেছে। প্রতি ছয় দিনে এটি তার তারকার চারপাশে ভ্রমণ করে। আর এলএইচএস ৩৮৪৪বি নামে একটি পাহাড়ি গ্রহ মাত্র ১১ ঘণ্টা প্রদক্ষিণ করে। এক্সোপ্লানেটের সর্বশেষ আবিষ্কারের নাম এইচডি ২১৭৪৯বি।

দীর্ঘ ৩৬ ঘণ্টা প্রদক্ষিণ করে এ গ্রহটি। ৫৩ আলোকবর্ষ দূরে রেটিকুলাম নক্ষত্রপুঞ্জে একটি ছোট্ট উজ্জ্বল তারকা প্রদক্ষিণ করে এটি। এ গ্রহটির উপরিভাগের তাপমাত্রা হবে অন্তত ১৬৫০ সেলসিয়াস। নিকটবর্তী তারকাগুলোর চেয়ে এটি কিছুটা শীতল।

অনুসন্ধানী দলের নেতৃত্ব দিয়েছেন এমআইটির কাভলো ইনস্টিটিউট ফর অ্যাস্ট্রোফিজিক্স অ্যান্ড স্পেস রিসার্চের ডিয়ানা ড্রাগোমির। তিনি বলেন, এইচডি ২১৭৮৯বি হচ্ছে- নিকটবর্তীগুলোর মধ্যে সবচেয়ে শীতলতম। ছোট্ট গ্রহপুঞ্জকে খুঁজে বের করা খুবই কঠিন। যেগুলো তাদের তারকাদের থেকে বহুদূরে প্রদক্ষিণ করে। নতুন এ গ্রহ পৃথিবী থেকে ২৩ গুণ বড়।