নাসির-তামিমার ন্যায় বিচারের দাবিতে জোরালো মানববন্ধন!

খেলাধুলা

ক্রিকেটার নাসির ও তার স্ত্রী তামিমার বিরুদ্ধে রাকিবের করা মামলার সুষ্ঠু তদন্ত ও বিবাহ রেজিস্ট্রেশন ডিজিটাল করার দাবিতে মানববন্ধন করেছে এইড ফর মেন ফাউন্ডেশন।

শনিবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) বেলা ১১টায় আয়োজিত এই মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি ড. আব্দুর রাজ্জাক খান। বিবাহ ও তালাক নিবন্ধন ডিজিটাল করার দাবিতে মানববন্ধন করেছে মানবাধিকার-বিষয়ক সংগঠন এইড ফর মেন ফাউন্ডেশন। শনিবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে এ দাবি জানানো হয়।

আরও পড়ূনঃ এক প্রেমিকের সাথে দুই বোনের শারীরিক সম্পর্ক, শেষে দু’বোনের আত্মহত্যা!

সেখানে বক্তারা বলেন, বিবাহ ও তালাক নিবন্ধন ডিজিটাল না হওয়ার কারণে বিয়ে সংক্রান্ত তথ্য গোপনের ঘটনা বৃদ্ধি পাচ্ছে। ফলে কম-বেশি সবাই এর দ্বারা প্রতারণার শিকার হচ্ছেন। তাই বিবাহ ও তালাক নিবন্ধন পদ্ধতি ডিজিটালাইজেশন করা হলে এই প্রতারণার হার অনেকাংশেই কমে আসবে। তখন যে কেউ সহজেই অনলাইনে দ্রুত বিবাহ ও তালাক নিবন্ধনের তথ্য পেয়ে যাবে

সম্প্রতি ক্রিকেটার নাসির ও তার স্ত্রী তামিমার বিয়ের ঘটনার প্রসঙ্গ টেনে বক্তারা বলেন, এই বিয়েটি নিয়ে বেশ আলোচনা-সমালোচনার সৃষ্টি হয়েছে। আমরা ক্রিকেটার নাসিরের বিরুদ্ধে রাকিবের করা মামলার সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচারের দাবি জানাচ্ছি। এ সময় বক্তারা ক্রিকেটার নাসির ও তার স্ত্রী তামিমার বিয়ের ঘটনার বেশ কিছু অসঙ্গতি তুলে ধরেন।

আরও পড়ূনঃ বড় মেয়ের চিকিৎসার ব্যয় মেটাতে ছোট মেয়েকে বিক্রি!

মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সভাপতি ড. আব্দুর রাজ্জাক খান, সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম নাদিম, আইন উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট কাওসার হোসেন, ঢাকা জেলা শাখার আহ্বায়ক হাদিউজ্জামান পলক প্রমুখ।মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে, ২০১১ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি তামিমা ও রাকিবের বিয়ে হয়। তাদের ৮ বছরের একটি মেয়েও রয়েছে। তামিমা পেশায় একজন কেবিন ক্রু।

চলতি বছরের ১৪ ফেব্রুয়ারি তামিমা ও ক্রিকেটার নাসির হোসেনের বিয়ের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে তা রাকিবের নজরে আসে। পরে পত্র-পত্রিকায় তিনি ঘটনার বিষয়ে সম্পূর্ণ জেনেছেন। মামলায় অভিযোগ করা হয়, রাকিবের সঙ্গে বৈবাহিক সম্পর্ক চলমান অবস্থাতেই তামিমা নাসিরকে বিয়ে করেছেন; যা ধর্মীয় এবং রাষ্ট্রীয় আইন অনুযায়ী সম্পূর্ণ অবৈধ।

আরও পড়ূনঃ ‘দ্য ফিনিশার’ নাসিরের ফেসবুক স্ট্যাটাস!

এতে আরও বলা হয়, ‘তামিমা ও নাসিরের এমন অনৈতিক ও অবৈধ সম্পর্কের কারণে রাকিব ও তার ৮ (আট) বছর বয়সী শিশুকন্যা মারাত্মভাবে মানসিক বিপর্যয়ে পড়েছেন। আসামিদের এ কার্যকলাপে রাকিবের চরমভাবে মানহানি হয়েছে; যা তার জন্য অপূরণীয় ক্ষতি।’

Tagged