http://igeneration.com.bd/wp-content/uploads/2021/04/জনপ্রিয়-পাঁচ-ফটো-এডিটিং-অ্যাপ.jpg

জনপ্রিয় পাঁচ ফটো এডিটিং অ্যাপ

মোবাইল অ্যাপ টিপস & ট্রিক্স

ছবি তোলার জন্য শুধু ক্যামেরানির্ভরতা অনেক আগেই কমে গেছে। এখন স্মার্টফোনেই চমত্কার ছবি তোলা যায় এবং সঙ্গে সঙ্গে তা শেয়ার করা যায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। ছবি আপলোড করার আগে স্মার্টফোনেই করা যাচ্ছে প্রয়োজনীয় এডিট।

যে পাঁচটি অ্যাপ ব্যবহার করে আপনার স্মার্টফোনে ফটো এডিটিং করতে পারেন—

স্ন্যাপস্পিড: ফটো এডিট করার জন্য জনপ্রিয় অ্যাপগুলোর মধ্যে স্ন্যাপস্পিড অন্যতম। ফটো এডিটিংয়ের জন্য ২৮টি ভিন্ন টুলস রয়েছে এতে। অ্যান্ড্রয়েড ও আইওএস অপারেটিং সিস্টেমে এ অ্যাপ ব্যবহার করা যায়। এখানে আপনি ছবিতে খুব সহজেই যেমন বিভিন্ন ফিল্টারের ব্যবহার করতে পারবেন, তেমনি আবার কাস্টম টিউনিং, কারভিং, টোনাল কন্ট্রাস্ট, হোয়াইট ব্যালান্সের মতো ফিচারগুলো ইচ্ছানুসারে ব্যবহার করে ছবিকে সুন্দর করে তুলতে পারবেন।

ভিএসসিও:
ভিএসসিও হলো আরেকটি ফটো এডিটিং অ্যাপ, যা অ্যান্ড্রয়েড এবং আইওএস ব্যবহারকারীরা ব্যবহার করতে পারবেন। এখানে আপনি প্রিসেট ফিল্টারের মতো ফিচারসহ ফটোতে থাকা খুঁতগুলো সংশোধন করতে ও এডিটিং ফিচারগুলোর মধ্যে সামঞ্জস্য আনার জন্য একাধিক বিকল্প পাবেন। এমনকি এডিটিংয়ের ক্ষেত্রে ছবির মান যাতে নষ্ট না হয়, তার জন্য আপনি ডিভাইস থেকে সরাসরি র-ফাইলগুলোও ইমপোর্ট করতে পারবেন।

প্রিজমা:
কয়েক বছর আগে ব্যবহারকারীদের মধ্যে অতিমাত্রায় জনপ্রিয় হয়ে ওঠা এ অ্যাপটি পুনরায় ফিরে এসেছে। অ্যাপটি অন্যান্য অ্যাপের তুলনায় আলাদা হওয়ার কারণ এটি একটি সাধারণ ছবিকে স্কেচ বা পেইন্টিংয়ে পরিণত করাতে সক্ষম। সেক্ষেত্রে আপনি অনেকগুলো চমত্কার ফটো ফিল্টারও পেয়ে যাবেন অ্যাপটিতে।

অ্যাডোব ফটোশপ লাইটরুম:
ফটোগ্রাফারদের মধ্যে অধিক ব্যবহূত অ্যাপগুলোর মধ্যে একটি হল অ্যাডোব ফটোশপ লাইটরুম। সাধারণ মানুষের জন্য এ অ্যাপ্লিকেশনটি ব্যবহার করা কঠিন হলেও এডিটিংয়ে দক্ষতাসম্পন্ন ব্যক্তির কাছে এ অ্যাপটি বিশেষ কার্যকরী হবে। ফটো এডিটিংয়ের জন্য বহু বিকল্পের সমন্বয়ে তৈরি এ অ্যাপটিতে আপনি পেয়ে যাবেন ছবির কালার ও ডিটেইলিং পরিবর্তনের জন্য কন্ট্রাস্ট, শ্যাডো, লেভেল, ফিল্টারের মতো প্রয়োজনীয় ফিচারগুলো।

পিক্সলার :
অনায়াসে ছবি এডিট করে ফেলার জন্য পিক্সলার অ্যাপটি যথেষ্ট সাহায্য করবে অ্যান্ড্রয়েড এবং আইওএস ব্যবহারকারীদের। এ ফটো এডিটিং অ্যাপটি সম্পূর্ণ বিনা মূল্যে ব্যবহার করা যায়। নৈমিত্তিক ব্যবহারকারীদের কথা মাথায় রেখে অ্যাপটি তৈরি করার কারণে এটি ব্যবহার করার পদ্ধতি খুবই সহজ। অতিরিক্ত পরিশ্রম না করেই আপনি এখানে তৈরি করে ফেলতে পারবেন সহজ, সরল তথাপি আধুনিক স্টাইলের সুনির্মিত অ্যানিমেশন।