http://igeneration.com.bd/wp-content/uploads/2021/05/মৌলভীবাজারে-ছাত্রলীগ-নেতা-কনক-পাল-ইসলাম-ধর্ম-গ্রহণ-করেছেন.jpg

মৌলভীবাজারে ছাত্রলীগ নেতা কনক পাল ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছেন

ইসলাম

মৌলভীবাজার জেলা ছাত্রলীগ সদস্য “কনক পাল” পবিত্র রমজান মাসে হিন্দু ধর্ম থেকে একমাত্র আল্লাহর মনোনীত সত্য ধর্ম ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছেন। মৌলভীবাজারে ছাত্রলীগ নেতা ‘কনক পাল’ ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছেন। বর্তমান নাম মোঃ আদনান রহমান। আল্লাহ তায়ালা এই ভাইকে কবুল করুন। আল্লাহ যেন তোমাকে ইসলাম ধর্মের সকল নিয়ম নীতি মেনে চলার তাওফিক দান করেন।আমিন।

পৃথিবীতে একমাত্র শান্তির ধর্ম হলো ইসলাম। ইসলামে যে কি শান্তি তা অমুসলিম বুঝবে না। যখন দুনিয়ার সর্বত্র জাহিলি ছড়িয়ে পড়েছিলো তখন।আমাদের নবী দুনিয়াতে আসেন। আর নবীর দাওয়াতে যারা ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন তারা ইসলাম ধর্ম যে কত।শান্তির তা বুঝতে পেরেছিলেন, এই কারনে তাদের উপর অগণিত কস্ট দেওয়ার পর ও তারা ইসলাম থেকে সরেন নাই, আল্লাহ আমাদের সবাইকে ইসলামে অটল থাকার তাওফিক দান করুন৷

মায়ের দু‘আ আমাকে কাবা শরীফের ইমাম বানিয়েছে লন্ডনের এক কনফারেন্সে পবিত্র কাবা শরীফের এক ইমাম আল কালবানি এই কাহিনী বর্ণনা করেন। এতে তিনি তার জীবনের একটি বাস্তবতা তুলে ধরেন। তিনি জানান, তার উপর কোনো কারণে রেগে গিয়ে তার মা আল্লাহর কাছে যে দু‘আ করেছিলেন তাই তার জীবনে সত্যে পরিণত হয়েছে।

মায়ের দু‘আ আমাকে কাবা শরীফের ইমাম বানিয়েছে ছোটবেলায় ইমাম কালবানি খুব দুষ্ট প্রকৃতির ছিলেন বলে জানালেন। দুষ্টুমি করে প্রায়শই তিনি মাকে রাগাতেন। কিন্তু তার মা ছিলেন খুবই দ্বীনদার একজন মহিলা, তিনি জানতেন আল্লাহর কাছে দু‘আর কী শক্তি। তিনি দু‘আ করাটা তার অভ্যাসে পরিণত করেছিলেন। ছেলের উপর যখনি রেগে যেতেন তখনি তিনি বলতেন, ‘আল্লাহ যেন তোমাকে পথ দেখান!

আর তিনি যেন তোমাকে কাবার ইমাম বানান!’ ইমাম আল কালবানি বললেন, ‘আল্লাহ তার দু‘আ কবুল করেছেন এবং আমি আজ কাবার ইমাম।’ কালো মানুষ শাইখ আদিল আল কালবানি পারস্য উপসাগরীয় এক দরিদ্র পরিবারের সন্তান। নিউইয়র্ক টাইমস-এর সঙ্গে এক সাক্ষাতকারে শাইখ কালবানি বলেছেন, ‘মসজিদুল হারামের নামাজের ইমামতি করা অসাধারণ সম্মানের, আর এই কাজ শুধুমাত্র আরব ভূখণ্ডের আরবদের জন্যই নির্ধারিত।’

ইমাম বলেন, যখন আপনার সন্তান খারাপ আচরণ করবে তখন তাকে গালমন্দ করবেন না। এতে বিপর্যয় ঘটতে পারে। আমি একজনকে জানি যিনি তার ছেলেকে বলেছিলেন— ‘যাও মর’, অতঃপর তিনি সেটার জন্য দুঃখ প্রকাশ করেছিলেন, যখন সেই দিনই তার ছেলে মারা যায়। সুবহানআল্লাহ!

প্রিয় সন্তানের পিতা ও মাতাগণ! আপনাদের ভাষা সংবরণ করুন। আপনার ছেলে-মেয়েদের জন্য ভাল দু‘আ করার অভ্যাস তৈরি করুন, এমনকি যখন আপনি অনেক রেগে যান তখনও তার জন্য দু‘আ করুন। মায়ের দু‘আ আমাকে কাবা শরীফের ইমাম বানিয়েছে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘তিনটি দু‘আ আল্লাহ কখনও প্রত্যাখ্যান করেন না। আল্লাহর এবাদতের জন্য এখন আমার এ জীবন। এই কথা গুলো বলেছেন জাপানি এক তরুণী যিনি বৌদ্ধ ধর্মানুসারী ছিলেন পরে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন।

Tagged