http://igeneration.com.bd/wp-content/uploads/2021/04/লন্ডন-থেকে-সাইকেল-চালিয়ে-হজযাত্রাই-৮-ব্রিটিশ-মদিনা-পৌঁছালেন.jpg

লন্ডন থেকে সাইকেল চালিয়ে হজযাত্রাই ৮ ব্রিটিশ মদিনা পৌঁছালেন

ইসলাম

লন্ডন থেকে সাইকেল চালিয়ে ৫৯ দিনে পেরিয়েছেন ১৭ দেশ। অম্ল-মধুর দীর্ঘ এ পথ পাড়ি দিয়ে শেষ পর্যন্ত পৌঁছেছেন প্রিয়নবীর শহর মদিনা মুনাওয়ারায়। শুক্রবার (২ আগস্ট) সৌদি আরবের রাজধানী জেদ্দায় পৌঁছালে সৌদি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা তাদের স্বাগত জানান। এরপর তারা সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাতে মিলিতও হন। খবর মিডল ইস্ট মনিটরের।

শনিবার (৩ আগস্ট) সন্ধ্যায় মদিনায় পৌঁছে হজগ্রুপটির প্রধান তাহির হাসান আখতার সংবাদমাধ্যমকে বলেন, এ দীর্ঘ বন্ধুর পথ আধ্যাত্মিক যাত্রা ছিল। বিভিন্ন অসুবিধা সত্ত্বেও এটি সবচেয়ে দুর্দান্ত ভ্রমণ আমাদের।  তাহির হাসান (৪৫) ২০১৭ সালে সাইকেলে ৮ সদস্যের হজযাত্রার দলে ছিলেন। তখনও তারা লন্ডন থেকে পবিত্র মক্কা নগরীতে এসে হজ করেছিলেন।

ব্রিটিশ গ্রুপটি পবিত্র হজ পালনের এ সফরকে ‘ট্যুর দ্য হজ’ বলে নাম দিয়েছে। যাত্রার দিন থেকে ৬০ দিনের ভেতর সৌদিতে গিয়ে পৌঁছানের আশা ছিল তাদের, তবে ৫৯ দিনেই পৌঁছে যান কাঙ্ক্ষিত লক্ষে। এ যাত্রায় ৪ হাজার মাইল অতিক্রম করতে হয়েছে। ১৫টি দেশ সাইকেল চালিয়ে পেরুলেও  সিরিয়া ও ইরাক বিমানে পাড়ি দিয়ে মিসরে পৌঁছান তারা। সেখান থেকে আবার সাইকেলযাত্রায় সৌদি আরবের উদ্দেশে রওয়ানা দেন।

প্রিয়নবী (সা.)-এর রওজা জিয়ারতের জন্য সৌদিতে পৌঁছে প্রথমে তারা মদিনা মুনাওয়ারায় যান। এরপর হজব্রত আদায়ের জন্য যাবেন পবিত্র মক্কা নগরীতে। তাদের দলের সাত জন সদস্য পাকিস্তানি বংশোদ্ভুত ও একজন শ্রীলঙ্কান বংশোদ্ভুত। এর আগে তুরস্ক পেরুনোর সময় ইস্তাম্বুলের দোলমাবাহচের প্রেসিডেন্ট দপ্তরে তুর্কি প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইপ এরদোয়ান তাদের স্বাগত জানিয়েছেন।

বিশ্বব্যাপী মুসলমানদের বিবিধ সমস্যা নিয়ে যাত্রাপথেতারা বিভিন্ন স্থানে জনসাধারণের মাঝে সচেতনতা তৈরির কাজ করছেন। পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা, দক্ষিণ আফ্রিকা ও উগান্ডার দরিদ্র মুসলমানদের সাহায্য, মসজিদ ও শিক্ষাঙ্গন নির্মাণ এবং গভীর নলকূপ খননের জন্য বিভিন্ন রকমের তহবিলও সংগ্রহ করছেন। এ তহবিলে ৬ লাখ ১৯ হাজার ডলার সংগ্রহ করা তাদের উদ্দেশ্য বলে জানা গেছে।

হাসান আখতার বলেন, যাত্রাপথে বহুবিধ চ্যালেঞ্জ আমরা মোকাবেলা করেছি। একেক সময় একেক রকম ঝামেলার মুখোমুখি হতে হয়েছে। সুইজারল্যান্ডের আল্পস পর্বত সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে প্রায় ৪ হাজার ৮১০ মিটার উঁচু। কিন্তু আলহামদুলিল্লাহ আমরা সেটাও আরোহন করে পাড়ি দিয়েছি। স্বভাবতই কষ্টের সঙ্গে আনন্দ-সুখের মিশেল থাকে।

সাইকেলে হজযাত্রা এবারই প্রথম নয়। বরং সাইকেল চালিয়ে হজে যাওয়ার চেষ্টা ইদানিং বাড়ছে। গত মাসে চার কেনিয়ান সাইক্লিস্ট এবং দুই সদস্যের একটি দল নাইজেরবি থেকে মক্কার উদ্দেশে দীর্ঘ যাত্রা শুরু করেছেন। তারা সৌদি আরবে পৌঁছে ওমরাহ আদায় করেছেন।

তাদের সফরের সার্বিক তথ্য জানাতে তারা ‘পেডল টু হজ’ নামে একটি ওয়েবসাইট খুলেছেন। সেখানে তারা তাদের কর্মপরিধি, যাত্রালক্ষ্য ও আনুসাঙ্গিক অন্যান্য তথ্য সংক্ষেপে উল্লেখ করেছেন। তাতে বলা হয়েছে, ‘পেডল টু হজ’ গ্রুপে চারজন সাইক্লিস্ট রয়েছেন। কেনিয়াতে মৌলিক শিক্ষায় সামর্থ্যহীন শিশুদের শিক্ষার জন্য তহবিল সংগ্রহের লক্ষ্যে তারা সাইকেলে হজে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

২০১৮ সালে ইন্দোনেশিয়ার মুসলমানদের পাঁচ সদস্যের এক পরিবার বাইসাইকেল চালিয়ে মক্কার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়েছেন হজ পালনের জন্য। এই পুণ্যের যাত্রায় রয়েছেন মুসলিস আবদুল্লাহ (৪৭), তার স্ত্রী জুলিয়ান্তি হুসিন (৪৭), তাদের সন্তান মির্জা হাকিম (১৫), আহমদ জাকি হাফিজ (১১) এবং ছয় বছর বয়সী অলিভিয়া ইয়ুমনা রয়েছেন। তাদের দিক-নির্দেশনায় সঙ্গে আছেন মুসলিসের বন্ধু মোহামেদ দামাহুরি মুতালিব (৬২)।

ইন্দোনেশিয়ার পাঁচ সদস্যের এক পরিবার বাইসাইকেল চালিয়ে মক্কার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়েছেন হজ পালনে। জাভার মধ্যাঞ্চলের শহর যুগজাকার্তায় নিজেদের বাড়ি থেকে মক্কায় গিয়ে পৌঁছাতে তাদের পাড়ি দিতে হবে ১৩ হাজার কিলোমিটার পথ।

এর আগে ২০১৭ সালে ইন্দোনেশিয়ান এক যুবক হজ পালন করতে ৯ হাজার কিলোমিটারেরও বেশি হাঁটে মক্কায় পৌঁছে। এছাড়াও একই বছর সাইকেল চালিয়ে হজের উদ্দেশে সৌদি আরবের মদিনায় যান যুক্তরাজ্যের আট যুবক। সেই যাত্রায় সিরিয়ার যুদ্ধবিধ্বস্ত মানুষের জন্য অর্থ সংগ্রহ করেন তারা। সেই আটজনের দলে তিন বাংলাদেশিও ছিলেন।

২০১৭ সালে সাইকেল চালিয়ে হজের উদ্দেশে সৌদি আরবের মদিনায় যান যুক্তরাজ্যের আট যুবক। সেই আটজনের দলে তিন বাংলাদেশিও ছিলেন।

২০১৬ সালে পবিত্র হজ পালনের উদ্দেশ্যে সাইকেল চালিয়ে সৌদি আরবের তায়েফ পৌঁছেছেন এক চীনা মুসলিম। চীনের জিংজিয়াংয়ের অধিবাসী ওই মুসলিমের নাম মুহাম্মদ। চীন থেকে সাইকেল চালিয়ে সৌদি পৌঁছতে তাকে ৮ হাজার ১৫০ কিলোমিটারের বেশি পথ পাড়ি দিতে হয়েছে।

চীনের জিংজিয়াংয়ের মুহাম্মদ। চীন থেকে সাইকেল চালিয়ে সৌদি পৌঁছতে তিনি ৮ হাজার ১৫০ কিলোমিটারের বেশি পথ পাড়ি দেন। ২০১২ সালে ৪৭ বছর বয়সী বসনিয়ান মুসলিম সেনাদ হাদজিক হজ পালনের জন্য পায়ে হেঁটে পবিত্র মক্কায় পৌঁছেন।