http://igeneration.com.bd/wp-content/uploads/2021/02/অভিনেত্রী-ভাবনাকে-চূড়ান্ত-শ্লীলতাহানি-হয়েছিল-ছবি-ও-ভিডিও-ধারণ.jpg

অভিনেত্রী ভাবনাকে চূড়ান্ত শ্লীলতাহানি, হয়েছিল ছবি ও ভিডিও ধারণ

বিনোদন

ঠিক ৪ বছর আগে ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারিতে ভারতের একটি রাজ্যে মালয়ালম অভিনেত্রী ভাবনাকে অপহরণ করে রাতের আঁধারে চলন্ত গাড়িতে শ্লীলতাহানির অভিযোগ উঠেছিল।

তখন ভারতে রাতের শহরে নারীদের নিরাপত্তা নিয়ে জোর প্রশ্ন উঠেছিল। শুধু তাই নয়, দুষ্কৃতিকারীরা অভিনেত্রীকে শ্লীলতাহানির সময় পুরো ঘটনার ছবি ও ভিডিও ধারণ করেছিল।

ওই সময় ভাবনা পুলিশকে জানিয়েছিলেন, ওই রাতে নিজের গাড়িতে কোচির আথানি এলাকা অতিক্রম করছিলেন তিনি। তখন অজ্ঞাত পরিচয় একজন ব্যক্তি তার গাড়ি থামিয়ে জোর করে গাড়িতে উঠে পরে। চলন্ত গাড়িতেই ভাবনাকে শ্লীলতাহানি করা হয়। পালারিভাট্টোমের কাছে এসে গাড়ি থেকে নেমে যায় দুষ্কৃতিকারীরা।

ভাবনা আরও জানিয়েছিলেন, দুষ্কৃতিকারীরা তার বেশ কিছু আপত্তিকর ছবি ও ভিডিও ধারণ করে। চূড়ান্ত হেনস্তার পর এক পরিচালকের বাড়িতে গিয়ে আশ্রয় নেন তিনি। পরিচালককে সব কথা খুলে বলেন। পরে পুলিশকে বিষয়টি জানানো হয়।

অভিনেত্রীর দাবি, ওই দুষ্কৃতিকারীদের মধ্যে তার প্রাক্তন গাড়িচালকও ছিলেন।

তদন্তে নেমে পুলিশ জানতে পেরেছিল, পুরো ঘটনাটিই ছিল পূর্বপরিকল্পিত। অভিনেত্রী ভাবনাকে নায়িকার নগ্ন ছবি তুলে তাকে ব্ল্যাকমেইল করার উদ্দেশ্যেই এমন ঘটনা ঘটানো হয়েছিল।

পুলিশের হাতে তথ্য-প্রমাণ আসে, গোটা ঘটনায় এলডিএফ রাজনৈতিক দলের এক নেতার দুই ছেলে ও ভাবনার সহকর্মী জড়িত ছিলেন। তবে ওই নেতা ও তার স্ত্রীর সঙ্গে ভাবনার ভালো সম্পর্ক ছিল বলেও তখন ভারতীয় সংবাদমাধ্যমগুলোর খবরে বলা হয়েছিল।

স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে বিচ্ছেদ পরিস্থিতি তৈরি হলে ভাবনা নেতার পক্ষে না দাঁড়িয়ে স্ত্রীর পক্ষ নিয়েছিলেন। তাতেই ক্ষুব্ধ হন ওই এলডিএফ নেতা। এমনকি ছবিতে কাজ পেতেও বাধা হয়ে দাঁড়ান তিনি।

ওই নেতার দুই ছেলে একপর্যায়ে মালায়লাম ছবিতে জায়গা করে নেয়। সেখানেই ভাবনার সঙ্গে তাদের পরিচয় হয়। সেখান থেকেই শ্লীলতাহানির সূত্রপাত।

Tagged