http://igeneration.com.bd/wp-content/uploads/2021/05/Monira-Mithu-cried-with-her-sons-marriage.jpg

ছেলের বিয়ে দিয়ে কাঁদলেন মনিরা মিঠু

বিনোদন

ক’দিন ধরেই অভিনেত্রী মনিরা মিঠুর বাসায় চলছে নাচ-গান পার্টি। চলবেই তো, বড় ছেলের বিয়ে বলে কথা। পর্দায় বহুবার শাশুড়ি চরিত্রে রূপদান করলেও এবার বাস্তবে শাশুড়ি হলেন এই অভিনেত্রী। গেলো ১৬ মে বিয়ে করেছেন মনিরা মিঠুর বড় ছেলে মুশফিক ইসলাম উপন্যাস। কনে ফৌজিয়া আফরিন স্বর্ণা। ছেলের বিয়ে দিয়ে কাঁদলেন মনিরা মিঠু।

বিয়ের যাবতীয় আয়োজন একা হাতে সামলেছেন মনিরা মিঠু। পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে চুটিয়ে মজাও করেছেন। পুত্রবধূর আগমনে নিজের মেয়ে না থাকার অভাব পূরণ হলো তার। ছেলের বউকে নিজের মেয়ের আসনে বসিয়েছেন এই অভিনেত্রী। পুত্রবধূকে পেয়ে খুশিতে কান্না করে দিয়েছেন মনিরা মিঠু।

ছেলের বিয়ে প্রসঙ্গে মনিরা মিঠু বলেন, ‘আমার দুইটা ছেলে, মেয়ে নেই। জীবনের প্রতি পদে আমি মেয়ে না থাকাটা অনুভব করেছি। সে আমার পুত্রবধূ না, আমার মেয়ে হয়ে থাকবে। সব সময় ছেলেদের খুশি রাখার চেষ্টা করেছি। পরিবারে এখন আমার একমাত্র মেয়ে সে। তাকে সুখী করতে প্রয়োজনে আমার রক্তের শেষ বিন্দু দিয়ে চেষ্টা করব।

তাদের যা পছন্দ, তা–ই করব। তারা খুশি থাকলেই আমি শান্তিতে থাকব।’তিনি আরও বলেন, ‘বাসায় একটা মেয়ে এসে আমার সংসারটা পূর্ণ করে দিল। মাথায় তেল দিয়ে দেওয়ার একজন মানুষ পাওয়া গেল। বিয়ের পরদিন সকালে নানা রকম খাবার টেবিলে সাজিয়ে মেয়ে আমাকে ঘুম থেকে তুলে খেতে ডেকেছে। খাবারের বহর দেখে যখন তাকে বললাম, মা, আমি প্রতিদিন শুটিংয়ে যাওয়ার আগে এক টুকরা কেক আর এক কাপ চা খেয়ে বের হই। এসবেই আমার অভ্যাস হয়ে গেছে।

শুনে মেয়ে অবাক! আমার মনে হয়েছে, আমার কষ্ট বোঝার একজন মানুষ পাওয়া গেল। নাটকে যখন ছেলে বিয়ে দিয়ে বউ আনতাম, তখন মনে হতো, বাসায় ফিরে যদি এ রকম একটা বউ আমার দরজা খুলে দিত! বলত, আম্মা হাত-মুখ ধুয়ে আসেন, আমি খাবার দিচ্ছি। এখন হয়তো গভীর রাতে শুটিং শেষে বলতে পারব মা রে, আমার জন্য একটু গরম পানি করে রেখো, এসে খাব। আমার দুই ছেলে ব্যস্ত থাকে। এখন তো কথা বলার জন্য একটা মেয়ে পেলাম।’

Tagged