বিয়ে না হওয়ায় নামাজরত অবস্থায় মেয়েকে জবাই করেন মা

সারা বাংলা

রংপুরে নিজের মেয়েকে হত্যা করার বিষয়ে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন মা জাহানারা বেগম। শনিবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে ১৬৪ ধারায় তার জবানবন্দি রেকর্ড করেন রংপুর জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত-৪ এর বিচারক আল-মেহেবব।

আরও পড়ূনঃ কুড়িগ্রামে অর্থের অভাবে ২০ হাজার টাকায় সন্তান বিক্রি করছেন মা!

শুক্রবার ঘটনাস্থল থেকে জাহানারা বেগম ও তার স্বামী মেনহাজুল হককে আটক করে পুলিশ। ওইদিন বিকালে রংপুরের বদরগঞ্জ উপজেলার বিষ্ণুপুর ইউনিয়নের বুজরুক হাজিপুর গাছুয়াপাড়ায় নিজের ঘরে খুন হন মাহবুবা আক্তার মেরী নামে তাদের ২৫ বছর বয়সী মেয়ে।

শুক্রবার রাতে সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরির পর মেরীর লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য রংপুর মেডিকেলের ফরেনসিক বিভাগে পাঠানো হয়। এরপর শনিবার দুপুরে লাশের ময়নাতদন্ত শেষ হয়েছে বলে জানিয়েছে মেডিকেল কর্তৃপক্ষ।

আরও পড়ুনঃ বাপ ছেলে মিলে ধর্ষণ, ধর্ষণের পর পুড়িয়ে হত্যা!

পুলিশ সুপার বিপ্লব কুমার সরকার জানান, প্রথমে পরিবারের পক্ষ থেকে এটিকে আত্মহত্যা বলে দাবি করা হলেও গলায় কাটার ধরন এবং পারিপার্শ্বিক কিছু বিষয় থেকে আমাদের কাছে এটি আত্মহত্যা মনে হয়নি। তাই নিহতের বাবা ও মাকে আমরা জিজ্ঞাসাবাদের জন্য হেফাজতে নেই।

ঘটনার একদিন পর মা নিজেই স্বীকার করলেন, আত্মহত্যা করেনি তার মেয়ে, তিনি নিজেই পেছন দিক থেকে জাপটে ধরে ধারালো ছুরি দিয়ে জবাই করেছেন। বছর পঁচিশের তরুণী মাহবুবা আক্তার মেরী তখন নামাজরত অবস্থায় ছিলেন।  তাই ঘটনার আগে মায়ের ফন্দি কিছুই বুঝতে পারেনি। গতকাল শনিবার দুপুরে ১৬৪ ধারায় দেওয়া জবানবন্দিতে ঘটনার বিস্তারিত তুলে ধরেন জাহানারা বেগম। রংপুরের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ৪-এর বিচারক আল-মেহেবব তার জবানবন্দি রেকর্ড করেন।

আরও পড়ূনঃ মেয়ে কার্টুন দেখতে চাওয়ায় নিজ সন্তানকে গলা টিপে হত্যা!

Tagged