http://igeneration.com.bd/wp-content/uploads/2021/06/All-out-lockdown-in-part-of-Naogaon-strict-restrictions-in-Khulna.jpg

নওগাঁর একাংশে সর্বাত্মক লকডাউন, খুলনায় কঠোর বিধিনিষেধ

সারা বাংলা

করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে নওগাঁ পৌরসভা ও নিয়ামতপুর উপজেলায় সাতদিনের সর্বাত্মক লকডাউন ঘোষণা করেছে কর্তৃপক্ষ। এর আগে চাঁপাইনবাবগঞ্জে যে লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছিল, তাও আরও এক সপ্তাহ বাড়ানো হয়েছে। নওগাঁর একাংশে সর্বাত্মক লকডাউন, খুলনায় কঠোর বিধিনিষেধ।

এছাড়া খুলনা মহানগরীর তিনটি থানায় সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ার কারণে স্থানীয় প্রশাসনের ভাষায় ‘কঠোর বিধিনিষেধ’ আরোপ করা হয়েছে। জেলায় কোভিড-১৯ সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ার কারণে সেখানকার কর্তৃপক্ষ এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

নওগাঁর জেলা সিভিল সার্জন ডাঃ এ বি এম আবু হানিফ বিবিসি বাংলাকে বলছেন, আমাদের জেলায় কয়েকটি এলাকায় সংক্রমণের হার বেশ উদ্বেগজনক বলে দেখতে পেয়েছি। এই কারণে জেলার নওগাঁ পৌরসভা ও নিয়ামতপুর উপজেলায় ‘সর্বাত্মক লকডাউন’ জারি করা হয়েছে। বাকি অংশেও সরকারি বিধিনিষেধ কড়াকড়িভাবে পালন করতে হবে।

তিনি জানান, সর্বাত্মক বিধিনিষেধ থাকার সময় জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কেউ ঘরের বাইরে বের হতে পারবেন না। সেখানে সকল প্রকার যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকবে। হাটবাজার, দোকানপাট, সকল প্রকার অফিস বন্ধ থাকবে। সাতদিন পর পরিস্থিতি বিবেচনায় পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। বুধবার পর্যন্ত নওগাঁ জেলায় ২ হাজার ৩০১ জন কোভিড-১৯ রোগী শনাক্ত হয়েছে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা সিভিল সার্জন ডাঃ জাহিদ নজরুল চৌধুরী বিবিসি বাংলাকে বলেছেন, সংক্রমণ বিবেচনায় জেলার সর্বাত্মক লকডাউন আরও এক সপ্তাহের জন্য বাড়ানো হয়েছে। এই জেলায় বুধবার পর্যন্ত শনাক্ত হয়েছেন ২০৩৩ জন। সংক্রমণের হার ৫৫ শতাংশ হয়ে যাওয়ায় গত ২৪শে মে এই জেলায় সাতদিনের লকডাউন ঘোষণা করে কর্তৃপক্ষ।

খুলনার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মাহবুব হাসান বিবিসিকে জানিয়েছেন, স্বাস্থ্য বিভাগের পরামর্শ অনুযায়ী জেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির সভায় মহানগরীর তিনটি থানা এলাকায় আগামী সাতদিনের জন্য কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। এসব এলাকায় দোকানপাট বন্ধ থাকবে, চলাচলেও কড়াকড়ি থাকবে। এসব থানার মধ্য আছে খুলনা সদর, খালিশপুর থানা এবং সোনাডাঙ্গা থানা।

Tagged