http://igeneration.com.bd/wp-content/uploads/2021/06/Bloody-body-of-a-schoolboy-in-Bhairab-shop.jpg

ভৈরবে দোকানে স্কুলছাত্রের রক্তাক্ত লাশ

সারা বাংলা

কিশোরগঞ্জের ভৈরব উপজেলায় প্রবাল (১৭) নামে এক স্কুলছাত্রকে হত্যা করা হয়েছে। মঙ্গলবার রাতে ভৈরব বাসস্ট্যান্ড দুর্জয় মোড় এলাকার সরদার হোটেলের পেছনে শাকিল মোটরস নামে একটি দোকানে এ ঘটনা ঘটে। ভৈরবে দোকানে স্কুলছাত্রের রক্তাক্ত লাশ।

নিহত প্রবাল উপজেলার বাসস্ট্যান্ড এলাকায় অবস্থিত মাতৃকা (প্রা.) হাসপাতালের মালিক হোসেন ভূঁইয়ার ছেলে। তার বাড়ি নরসিংদীর রায়পুরা উপজেলার মুছাপুর গ্রামে। তবে তারা হাসপাতালের ওপর তলার বাসায় বসবাস করেন।

প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার বিকালে বাসস্ট্যান্ড এলাকায় কিশোর গ্যাংদের মধ্য ঝগড়া হয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে আসার আগেই অপরাধীরা পালিয়ে যায়। এর পর লোকমুখে খবর ছড়িয়ে পড়ে বাসস্ট্যান্ড এলাকায় জিল্লুর রহমানের ছেলে অন্তর (২৫) রক্তমাখা কাপড় নিয়ে দৌড়ে পালিয়ে গেছে। তার সঙ্গে আরও দুয়েকজন কিশোর ছিল বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা পুলিশকে জানান।

পরে পুলিশ রাত সাড়ে ৮টার দিকে আবারও ঘটনাস্থলে এসে শাকিল মোটরসের দোকানটির তালা ভেঙে প্রবেশ করে দেখতে পান প্রবালের লাশ রুমের দেয়াল ঘেঁষে পড়ে আছে। লাশের সঙ্গে একটি খালি বস্তাও পায় পুলিশ। তবে ধারণা করা হচ্ছে, হত্যাকারীরা লাশটি গুম করতে বস্তা এনেছিল। গুম করতে না পেরে হত্যাকারীরা শরীরে রক্তমাখা কাপড়ে মানুষের সামনে দিয়ে দৌড়ে পালিয়ে যায়।

নিহতের পরিবারের সদস্যরা রাত পৌনে ৯টায় খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে এসে লাশ শনাক্ত করেন। নিহত প্রবালের ভাই শৈবাল বলেন, আমার ছোট ভাই স্কুল থেকে এসএসসি পাস করে কলেজে ভর্তির অপেক্ষায় ছিল। সে আজ বিকালে বাসা থেকে বের হওয়ার পর আর ফেরেনি। পরে ঘটনার খবর পাই।

ভৈরব থানার ওসি মো. শাহিন জানান, খবর পেয়ে পুলিশ সন্দেহজনকভাবে শাকিল মোটরসের দোকানের তালা ভেঙে ঘটনাটি উদ্ঘাটন করে। প্রবালকে কে বা কারা হত্যা করেছে তা জানা যায়নি। সিআইডির ক্রাইম সিনকে খবর দেওয়া হয়েছে। তারা এসে ঘটনা প্রত্যক্ষ করে প্রাথমিক আলামত পরীক্ষার পর লাশ থানায় নেওয়া হবে। পরে ঘটনা তদন্তের পর আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Tagged