সন্তানকে বাঁচাতে প্রাণ দিলেন মা!

সারা বাংলা

নাটোরের বড়াইগ্রামে সড়ক দুর্ঘটনায় শিশু সন্তান জান্নাতুলকে (৪) বাঁচাতে গিয়ে নিজের জীবন দিলেন এক মা। সন্তানকে বাঁচিয়ে ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয়ে মারা যান নুরজাহান বেগম (৩২) নামের ওই মা।

মঙ্গলবার (১৮ মে) পাবনা-নাটোর মহাসড়কে উপজেলার গোপালপুর ইউনিয়নের গড়মাটি মুচিপাড়া এলাকায় এই মর্মান্তিক দুর্ঘটনাটি ঘটে। নুরজাহান গড়মাটি মুচিপাড়া গ্রামের মিলন উদ্দিনের স্ত্রী।

নিহতের স্বামী মিলন উদ্দিন জানান, আমার সামনেই স্ত্রী নুরজাহান ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয়ে মারা গেল। স্ত্রী ও দুই সন্তানকে সাথে নিয়ে মহাসড়কের পাশে সবজির জমিতে ভেন্ডি তোলার জন্য যাচ্ছিলাম। আমি ও ছেলে মোহিন (১৪) মহাসড়ক পার হয়ে গেলেও স্ত্রী নুরজাহান ও কন্যা জান্নাতুল (৪) পারাপারের অপেক্ষায় দাঁড়িয়েছিলেন।

হঠাৎ একটি ট্রাকটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে স্ত্রী ও কন্যা জান্নাতুলের দিকে এগিয়ে যাচ্ছিল। তখন নিশ্চিত মৃত্যু হচ্ছে দেখে নুরজাহান তার কন্যা জান্নাতুলের হাত ধরে ছুড়ে দূরে ফেলে দেওয়ার সাথে-সাখেই ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হন নুরজাহান।  ট্রাকটি তখন চোখের সামনেই মহাসড়কের উপর উল্টে পড়ে যায় এবং মাতৃত্বের ভালবাসার দৃষ্টান্ত রেখে দুনিয়া থেকে চির বিদায় নিয়ে চলে যান নুরজাহান- এসব কথা বলেই প্রলাপ করছিলেন স্বামী মিলন।

ময়মনসিংহগামী মোটরসাইকেলটিকে পেছনে থাকা বালু বোঝাই ট্রাক কাছাকাছি চলে গেলে ব্রেক কষতে গিয়ে স্লিপ করে মোটরসাইকেলটি। ওই সময় সন্তান কোলে রুবিনা পড়ে যান। অবস্থা বেগতিক দেখে কোলের সন্তাক ছুড়ে ফেলেন রাস্তার ওপারে। নিজে চাপা পড়েন ট্রাকের নিচে। রুবিনা চলন্ত ট্রাকটি পিষে নিয়ে যায় কয়েকগজ।

তখনও ছোট্ট নীলার দেহে প্রাণ ছিল। স্ত্রীর লাশ রাস্তার রেখে মেয়েকে বাঁচাতে রনি ছুটেন হাসপাতালে। কিন্তু সেখানে নেওয়ার পর চিকিৎসক শিশুটিকে মৃত ঘোষণা করেন।  নিহতের ভাই আল মামুন বলেন, বাড়িতে বিয়ের অনুষ্ঠান থাকলেও মৃত্যু সংবাদ পেয়ে তার বোন চলে যায়। বাড়ি থেকে বের হবার কিছুক্ষণের মধ্যেই তার বোন ও ভাগ্নি ট্রাক চাপায় মৃত্যু হয়।

Tagged