http://igeneration.com.bd/wp-content/uploads/2021/05/মৃত-মায়ের-পাশে-২-দিন-পড়ে-রইলো-দুধের-শিশু-করোনার-ভয়ে-ছুঁয়ে-দেখলো-না-কেউ.jpg

মৃত মায়ের পাশে ২ দিন পড়ে রইলো দুধের শিশু, করোনার ভয়ে ছুঁয়ে দেখলো না কেউ

সারা বাংলা

দুইদিন আগে মায়ের মৃত্যু হয়েছে। মৃত মায়ের পাশে ২ দিন অভুক্ত পড়ে রইলো ১৮ মাসের শিশু। কিন্তু করোনার ভয়ে কেউই ছুঁয়ে দেখলো না। করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন সন্দেহে কেউই তার সাহায্যে এগিয়ে যায়নি। ভারতের মহারাষ্ট্রের পুণেতে এমন মর্মান্তিক ঘটনায় ফের মহামারির ভয়াল চিত্র ফুটে উঠলো।

পুলিশ জানিয়েছে, পুণের পিমরি চিঞ্চবাড় এলাকায় সোমবার একটি ঘর থেকে দুর্গন্ধ ছড়ানোর পর তাদের খবর দেয় প্রতিবেশীরা। পরে পুলিশ গিয়ে দরজা ভেঙে ওই নারীর মরদেহ নিয়ে যায়। ঘটনার সময় ওই নারী তার শিশুসন্তানকে নিয়ে একাই ছিলেন। তার স্বামী উত্তরপ্রদেশের কাজের খোঁজে গিয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

গত শনিবার ওই নারীর মৃত্যু হয়ে থাকতে পারে বলে ধারণা পুলিশের। তবে ময়নাতদন্তের পরই সঠিক সময় জানা যাবে বলে জানিয়েছেন তারা। পাশাপাশি ওই নারী আদৌ কোভিড পজিটিভ ছিলেন কিনা তাও জানা যাবে। তবে করোনা সংক্রমণের ভয়ে প্রতিবেশীদের কেউ ওই শিশুটিকে কোলে নিতে চায়নি।

যদিও ওই নারীর মরদেহ নিয়ে যাওয়ার সময় শিশুটিকে কোলে তুলে নেন নারী কনস্টেবল সুশীলা গোভলে এবং রেখা ওয়াজে। মৃত্যুর ভয় লাগেনি? এমন প্রশ্নের জবাবে সুশীলা বলেন, আমার দুটি বাচ্চা রয়েছে। একজনের বয়স ৮ ও অন্যজনের ৬ বছর। ওকে আমার নিজের বাচ্চাই মনে হয়েছে। ওর এত ক্ষুধা পেয়েছিল যে চটপট দুধ খেয়ে নিয়েছে।

রেখা বলেন, ওই নারী করোনায় মারা গেছে সন্দেহ করা হলেও তার বাচ্চাটি প্রায় সুস্থই রয়েছে। তবে সামান্য জ্বর থাকায় বাচ্চাটির করোনা টেস্ট করা হয়। তবে বাচ্চাটির রিপোর্টে করোনা ধরা পড়েনি। আপাতত তাকে সরকারি ক্রেশে রাখা হয়েছে বলে জানান পুণে পুলিশের অপরাধ দমন শাখার ইনস্পেক্টর প্রকাশ যাদব।