বিদেশিরা ব্যাংক থেকে বিনিয়োগ তুলে নিচ্ছে!

বিজনেস সারা বাংলা

বাংলাদেশ ব্যাংকে বিনিয়োগকারীর সংখ্যা অনেক যারা কোটি কোটি টাকা বিনিয়গ করে রেখেছে এই ব্যাংকে। কিন্তু এখন তারা সেই ব্যাংকের উপর আস্থা রাখতে পারছে না বলে জানিয়েছেন তারা। তালিকাভুক্ত ব্যাংকগুলোতে বিদেশিদের বিনিয়োগের বিষয়টি পর্যালোচনা করে এমন তথ্য পাওয়া গেছে।

তবে অবশ্য বিদেশিরা বেশি মুনাফার আশায় তারা যেখানে বেশি মুনাফা পাবে সেখানেই তারা বিনিয়গ করে থাকেন।খেলাপি ঋণে জর্জরিত বেশিরভাগ ব্যাংক। পরিচালন মুনাফাও ভালো হচ্ছে না। এ কারণে ব্যাংকের প্রতি বিনিয়োগকারীরা আস্থা পাচ্ছেন না। ব্যাংকের বিভিন্ন রকমের বাংক জালিয়াতি ও নানা সমস্যায় জর্জরিত থাকায় ব্যাংক সঠিক মুনাফা দিতে পারছে না। যে কারনে বিদেশিরা তাদের বিনিময় তুলে নিতে ইচ্ছা পোষণ করছে।

বাংলাদেশের ৩০টি ব্যাংকের মধ্যে ঢাকা ব্যাংক, আইসিবি ইসলামী ব্যাংক, মিউচ্যুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক এবং রূপালী ব্যাংকে বিদেশিদের বিনিয়োগ নেই। বাকি ২৬টি ব্যাংকের শেয়ারে বিদেশিদের বিনিয়োগ রয়েছে। ২০২০ সালের ডিসেম্বর শেষে এই ব্যাংকগুলোর প্রায় ১২১ কোটি ৫০ লাখ ৮৬ হাজার শেয়ার বিদেশিদের কাছে রয়েছে। ২০১৯ সালের ডিসেম্বরের দিকে ব্যাংকের শেয়ার ছিল প্রায় ১৬০ কোটি ৪১ লাখ ১৩ হাজার। সেখান থেকে এক বছরের ব্যবধানে বিদেশি বিনিয়োগকারীরা বিভিন্ন ব্যাংকের ৩৮ কোটি ৯০ লাখ ২৭ হাজার শেয়ার ছেড়ে দিয়েছেন।

ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির জানান, বিদেশিরা যেখানে সেখানে বিনিতিগ করতে নারাজ, একমাত্র বেশি মুনাফার আশায় তারা অর্থ বিনিয়গ করে। তাছাড়া এখন ব্যাংকগুলোতে খেলাপি ঋণ বাড়ছে, তার মধ্যেই অতিরিক্ত তারল্য থেকে যাচ্ছে। আবার পরিচালন মুনাফা বা কর-পরবর্তী মুনাফা কোনোটাই ব্যাংকের খুব ভালো হচ্ছে না। তাই তারা এ সুযোগ নিয়ে আপাতত ব্যাংক থেকে সরে যেতে চাইছেন। এতেই বুঝা যায় যে তারা একমাত্র বেশি মুনাফার আশায় অর্থ বিনিয়গ করেন।

বর্তমানে যে ২৬টি ব্যাংকে বিদেশিদের বিনিয়োগ রয়েছে এর মধ্যে ইস্টার্ন ব্যাংকের দুই কোটি ২৪ লাখ ৮৬ হাজারের বেশি শেয়ার গত এক বছরে নতুন করে কিনেছেন বিদেশিরা। ফলে কোম্পানিটির ৩ দশমিক ১৭ শতাংশ বা দুই কোটি ৫৭ লাখ ৩৪ হাজার শেয়ার এখন বিদেশিদের কাছে রয়েছে।

বিদেশিদের বিনিয়োগ বাড়া অপর প্রতিষ্ঠান সোস্যাল ইসলামী ব্যাংকের এক কোটি ২৮ লাখ ৫০ হাজার শেয়ার রয়েছে বিদেশিদের হাতে, যা কোম্পানিটির মোট শেয়ারের ১ দশমিক ৩৭ শতাংশ। গত এক বছরে ব্যাংকটির তিন লাখ ৭৫ হাজার শেয়ার নতুন করে কিনেছেন বিদেশিরা।

ব্র্যাক ব্যাংক এক বছরে বিদেশিরা ব্যাংকটির পাঁচ কোটি ১৮ লাখ ৪২ হাজার শেয়ার বিক্রি করেছেন। বিপুল পরিমা শেয়ার বিক্রির পরও এখনো ব্যাংকটিতে বিদেশিদের সর্বোচ্চ বিনিয়োগ রয়েছে। এখন ব্যাংকটির ৩৯ দশমিক ৫৭ শতাংশ বা ৫২ কোটি ৪৬ লাখ ৫০ হাজার শেয়ার রয়েছে বিদেশিদের কাছে।