অনলাইনে ব্যবসা শুরুর আগে যা জানা দরকার !

বিজনেস বিজনেস আইডিয়া

অনলাইনে বিজনেজ শুরুর আগে কিছু বিষয় এর দিক লক্ষ্য রাখতে হবে। আগে জানতে হবে কিভাবে ব্যবসার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা করতে হয়। এই সকল কিছু বিষয় আগে থেকে ঠিক না করলে আপনি অনলাইন ব্যবসায় ক্ষতির সম্মুখিন হতে পারেন।

ব্যবসায়িক সারসংক্ষেপঃ

ব্যবসা শুরু করার আগে কি ধরনের ব্যবসা করবেন, কি ধরনের পন্য বিক্রি করবেন, কত টাকা বাজেট থাকবে , কোথা থেকে পন্য সংগ্রহ করবেন এসকল জিনিস আগেই লিখে রাখতে হবে। যাতে আপনি পরবর্তী সময়ে এই পরিকল্পনা অনু্যায়ী কাজ করতে পারেন। ব্যবসায়িক ধারনা গুলো লিখে রাখলে আপনি ব্যবসা শুরুর পর ভবিষ্যতে পর্যালোচনা করতে সুবিধা হয়।

লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারন করাঃ

ব্যবসার মূল উদ্দেশ্য হল টাকা উপার্জন করা। এজন্য  একটি লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারন করা উচিৎ। আপনি আপনার ব্যবসা থেকে কত টাকা উপার্জন করতে চান? আগামী তে আপনার কোম্পানীকে কোথায় দেখতে চান? আপনার ব্যবসাতে কি কি ধরনের উন্নতির দরকার? এসব কিছুর জন্য একটি লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারন করতে নিতে হবে । আপনি যদি নির্দিষ্ট লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারনা না করে ব্যবসা শুরু করেন তাহলে ব্যবসায় ক্ষতি হতে পাবে।

মার্কেটে এনালাইসিসঃ

আপনাকে বাজার বিশ্লেষন করতে হবে। আপনি যত ভাল করে বাজার বিশ্লেষন করবেন , আপনি জানতে পারবেন বাজারে কি ধরনের প্রতিযোগিতা চলছে  । বাজারে আপনার কোন ধরনের প্রতিযোগির সম্মুখিন হতে হবে তা জানতে পারবেন। এতে করে আপনার চলার পথ অনেক সহজ হয়ে যাবে ।

পরিচালনা কাঠামোঃ

একার পক্ষে অনেক সময়েই ব্যবসা পরিচালনা করা সহজ হয় না । তাই ব্যবসা পরিচলনা করার জন্য একটি পরিচালনা কমিটি বা কাঠামো থাকতে হবে । এতে করে ব্যবসা ভালো করে পরিচালনা করা যায় এবং নতুন আইডিয়া পাওয়া যায়।

প্রোডাক্ট ও সার্ভিসঃ

আপনি কি ধরনের পন্য নিয়ে কাজ করবেন , কারা এই পন্য কিনবে , কেন আপনার পন্য কিনবে, অন্য আর কে এই ব্যবসা করে, কিভাবে ব্যবসা করে এইসকল জিনিস গুলো ভালো করে জানতে হবে। আপনি যেহেতু নতুন ব্যবসা করবেন, তাই এই সকল বিষয় সম্পর্কে সুস্পষ্ট ধারনা থাকা দরকার।

বাজেটঃ

আগেই বলে রাখি , অনেক গুলো টাকা ইনভেস্ট করে বসে থাকবেন না ।আগে মার্কেট এর বিক্রির অবস্থা বুজে ইনভেস্ট করবেন। বাজেট করার সময় অবশ্যই মাস্টার প্লানিং করে বাজেট করুন। অল্প মূলধন নিয়ে আগে ব্যবসা শুরু করলে আস্তে আস্তে বাজেট এর পরিমান বাড়াতে পারেন।